এতিমের হক আত্মসাতের পরিণাম

শাহ মাহমুদ হাসান

 

কোরবানির চামড়ায় রয়েছে গরিব-মিসকিন ও এতিমের হক। কোরবানিদাতারা কোরবানির পশুর চামড়া বিক্রির টাকা স্থানীয় মাদ্রাসার গরিব ছাত্র, এতিম-মিসকিন বা গরিব মানুষের মধ্যে বিতরণ করেন। কিন্তু কয়েক বছর হলো চামড়ার দাম পাচ্ছেন না কোরবানিদাতারা। একশ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের মাধ্যমে কোরবানির চামড়ার দাম কমিয়ে দিয়েছেন। এ বছর কোরবানির পশুর চামড়ার দাম এতটাই কমেছে যে, বিক্রির জন্য ক্রেতাই খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। লাখ টাকার কোরবানির গরুর চামড়া বিক্রি হয়েছে মাত্র ৩০০-৪০০ টাকায়। গ্রামাঞ্চলে আরও কম! চামড়ার দাম না পাওয়ায় কোরবানিদাতাদের অনেকেই ক্ষুব্ধ হয়ে কোরবানির চামড়া মাটিতেই পুঁতে ফেলেছেন। যেসব অসাধু ব্যবসায়ীর কারণে এ পরিস্থিতি তৈরি হলো, নিঃসন্দেহে তারা এতিম ও গরিবের হক নষ্ট করেছেন।

এতিম ও গরিব-মিসকিনের হক ও অধিকার আদায় করা ইসলামের নির্দেশ। এতিমের সঙ্গে কেমন ব্যবহার হবে, এ প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘তারা আপনাকে এতিম সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করে। বলে দিন, তাদের সুব্যবস্থা তথা পুনর্বাসন করা উত্তম।’ সূরা বাকারাহ, আয়াত ২২০। এতিমদের হক নষ্ট করলে আল্লাহর কাছে জবাবদিহি করতে হবে এবং জাহান্নামে যেতে হবে। আর যারা এতিমের হক আদায় করবে তাদের ঠিকানা হবে জান্নাত। এতিম প্রতিপালনের দ্বারা শুধু এতিমরাই উপকৃত হয় না বরং এতিম প্রতিপালনকারীর রিজিক প্রশস্ত হয়, এবং সে আল্লাহর রহমত ও বরকত -প্রাপ্ত হয়। রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘তোমাদের দুর্বল-অসহায়দের কারণেই তোমরা সাহায্য ও রিজিক -প্রাপ্ত হও।’ এতিমের সাহায্যকারী ও পুনর্বাসনকারীদের মর্যাদা সম্পর্কে রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আরও বলেন, ‘বিধবা, এতিম ও গরিবের সাহায্যকারী ব্যক্তি আল্লাহর পথে মুজাহিদের সমতুল্য। অথবা তার মর্যাদা সেই রাত জাগরণকারী নামাজির মতো, যে কখনো ক্লান্ত হয় না। অথবা তার মর্যাদা সেই রোজাদারের মতো, যে কখনো ইফতার করে না।’ মুসলিম।

এতিমের হক নষ্ট করলে আল্লাহর কাছে জবাবদিহি করতে হবে এবং জাহান্নামে যেতে হবে। আইয়ামে জাহেলিয়ায় এতিম-মিসকিনদের জানমালের কোনো নিরাপত্তা ছিল না।

শেয়ার করুন

Leave a Comment